স্বাস্থ্যকর্মীদের অনভিজ্ঞতার কারনে ঝুঁকির যাত্রা রেলযাত্রীদের!

স্টেশন থেকে ট্রেন ছাড়ার আগে চালক, গার্ড, অ্যাটেনডেন্স, টিটিই ও যাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার নির্দেশনা রয়েছে সরকারের। আর এই স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে থাকে রেলওয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের একটি টিম। তারা পরীক্ষা শেষে মৌখিক অনুমতি দিলে রেল কর্মীসহ যাত্রীরা উঠতে পারেন ট্রেনে। তবে এই অনুমতি দানকারীদের স্বাস্থ্য বিষয়ে কোন অভিজ্ঞতাই নেই। ফলে স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়েই যাত্রীরা ট্রেনে চড়ছেন।এমনই চিত্র চট্টগ্রাম রেলস্টেশনের।

এই বিষয়ে যাত্রীরা জানার পর তাদের প্রশ্ন থাকে অনেকটা একই— করোনার এই সময়ে অনভিজ্ঞ এসব স্বাস্থ্যকর্মী দিয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো কতটা নিরাপদ? বরং এদের দিয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করালে করোনা ঝুঁকিতে পড়বে রেলের যাত্রীরা।

জানা গেছে, রেলওয়ের স্বাস্থ্যবিভাগ থেকে মাত্র তিনজন পুরুষ নার্সকে যাত্রী ও রেলকর্মীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

রেলের যাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার দায়িত্বপ্রাপ্ত তিনজনেরই নেই স্বাস্থ্য বিষয়ে কোনো অভিজ্ঞতার সনদ। তিনজনই খালাসি হিসেবে চাকরি পেলেও ভাগ্যক্রমে তারা পদোন্নতি পেয়ে হয়েছেন নার্স। এছাড়া রেলওয়ে হাসপাতালে ডিপ্লোমা সনদধারী সিনিয়র নার্স রয়েছেন ৬ জন। এদের মধ্যে দুজন অবসরে চলে গেছেন। বাকি ৪ জন হাসপাতালেই কর্মরত রয়েছেন। তবে এদের মধ্য থেকে কাউকে দায়িত্ব দেওয়া হয়নি।

এছাড়া চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্বাস্থ্য বিভাগে আরও ১২ জন জুনিয়র নার্স রয়েছেন। এদের মধ্যে ৩ জনকে স্টেশন ও ৪ জনকে হাসপাতালের ইনডোরে দায়িত্ব দেওয়া হলেও বাকি ৫ জনের কোনো হিসেব নেই।

Tags:

এ বিভাগের আরো কিছু সংবাদ

মন্তব্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *