সিডনি বাঙালী কমিউনিটির ঈদ এক্সিবিশন ২৫ এপ্রিল, ২ মে এবং ৯ মে

করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকার ফলে অস্ট্রেলিয়ার সরকার বিধিনিষেধ তুলে নেয়াতে কমিউনিটিতে স্বাভাবিক জীবন ফিরে এসেছে।
সিডনি বাঙালী কমিউনিটি ২০১৯ সালে রমজানে দুইটি ঈদ এক্সিবিশন করলেও গত বছর (২০২০),এই সময় করোনা ভাইরাসের জন্য সারা অস্ট্রেলিয়াজুড়ে ছিল লক ডাউন তাই হয়নি কোনো রকমের সামাজিক মিলন মেলা।
নিউ সাউথ ওয়েলসের রাজ্য সরকার কমিউনিটি মিলনমেলাগুলোতে উৎসাহ দেয়া শুরু করেছে এবং এরই ধারাবাহিকতায় সিডনি বাঙালি কমিউনিটি ও সিডনির কিছু নামকরা বুটিক হাউজকে নিয়ে আবারো ঈদ এক্সিবিশন করার উদ্যোগ নিয়েছে।
এই উপলক্ষ্যে শনিবার সকালে ক্যাসুলার ‘লা মনো’ কাবাব হাউজে এক সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করেন আয়োজক কমিটির সদস্যরা।

আয়োজক কমিটির সাধারণ সম্পাদক সেলিমা বেগম জানান, ” এইবার ঈদ এক্সিবিশন চলবে তিনদিন ইঙ্গেলবার্ন কমিউনিটি হলে।আগামী ২৫ এপ্রিল , ২ মে এবং ৯ ই মে সকাল ১১টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত।বাঙালী কমিউনিটির একটু “নন প্রফিটেবল” কমিউনিটি গ্রূপ যার মূল উদ্দেশ্য সিডনিতে অবস্থানরত বাঙালী নারী উদ্যোক্তাদের উৎসাহ দেয়া অর্থ উপার্জন করা নয়। এই মেলার কমিউনিটি হল ভাড়া, ক্লিনিং এবং কোভিড-১৯ এর বিধিনিষেধ রক্ষা করতে যে খরচ হবে সেই খরচের অর্থ বুটিক হাউজের উদ্যোক্তাতারা বহন করবে যেখানে কোনো ধরণের লুক্কায়িত খরচ নাই। আমাদের এইখানে কোন ধরণের খাবারের স্টল থাকবে না। শুধুমাত্র ঈদ বস্ত্র, গহনা ও অন্যান্য ঈদের সামগ্রীর সমন্বয়ে সব ধরণের বাংলাদেশী অস্ট্রেলিয়ান বুটিকের সমাবেশ থাকবে। এই প্রদর্শনীতে আসতে হলে কোনো টিকিটের প্রয়োজন হবে না কিন্তু অবশ্যই কাউন্সিলের শর্ত মোতাবেক বারকোড স্ক্যান অথবা রেজিস্টারে নাম অন্তর্ভুক্ত করে প্রবেশ করতে হবে। “

বুটিক হাউজের পক্ষ থেকে কথা বলেন ‘বাঙালী নারী’র ওমরানা , ‘রঙ্গন’ এর ফারজানা , ‘জারাহ কালেকশন’ এর রুপন। প্রত্যেকেই ২০১৯ সালে ঈদ এক্সহিবিশনের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন। যেহেতু ক্যাম্পবেলটাউন এলাকায় এই ঈদ এক্সিবিশন করাতে অত্র এলাকার লোকজনদেরকে দূরদূরান্তে ড্রাইভ করে যেতে হয় না এবং গাড়ী পার্কিং এর ঝক্কি পোহাতে হয় না।

Tags:

এ বিভাগের আরো কিছু সংবাদ

মন্তব্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *