শূণ্য দশমিক ২ মিটার কমিয়ে ১২ মিটার (৩৯ দশমিক ৩৭ ফুট) উচ্চতায় সেতু নির্মাণে অনুমতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

অবশেষে কর্ণফুলী নদীতে নতুন কালুরঘাট সড়ক কাম সেতু নির্মাণে জটিলতা কেটে গেছে। সেতু উচ্চতা নিয়ে বিআইডব্লিউটিএ ও রেলওয়ের দ্বন্দ্ব নিরসন হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তে। ১২ দশমিক ২ মিটার না হলেও শূণ্য দশমিক ২ মিটার কমিয়ে ১২ মিটারই সেতু নির্মাণের অনমুতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোববার ঢাকার সেতু ভবনে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের পর বিআইডব্লিউটিএ ১২ দশমিক ২ মিটারে অনড় থাকলেও রেলওয়ে চেয়েছিল প্রথমে ৭ দশমিক ২ মিটার পরে ৯ মিটার পর্যন্ত করতে৷ কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর করা আইন অনুযায়ী বিআইডব্লিউটিএর অনাপত্তি ছাড়া সেতু করাই যাবে না। ফলে সিদ্ধান্তের জন্য উভয়পক্ষই রোববার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর দ্বারস্থ হন। ওই বৈঠকে আইনগত দিক ও টেকনিক্যাল সব দিক বিবেচনায় নিয়ে শূণ্য দশমিক ২ মিটার কমিয়ে ১২ মিটার (৩৯ দশমিক ৩৭ ফুট) উচ্চতায় সেতু নির্মাণে অনুমতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রথম শ্রেণির নদীতে সেতু করতে হলে উচ্চতা হতে হবে ১৮ দশমিক ৩ মিটার, দ্বিতীয় শ্রেণির নদীতে সেতু হলে উচ্চতা হতে হবে ১২ দশমিক ২ মিটার আর তৃতীয় শ্রেণির নদীতে সেতু হলে উচ্চতা হতে হবে ৭ দশমিক ২ মিটার। বর্তমানে দ্বিতীয় শ্রেণির কর্ণফুলী নদীতে রেলওয়ে সেতু করতে চাচ্ছে তৃতীয় শ্রেণির হিসাবে ৭ দশমিক ২ মিটার উচ্চতায়। এরকম হলে সরকারি গেজেট লঙঘন হবে আর নদী মরে যাবে, এমন দাবি নৌ পরিবহন অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের।

বর্তমানে কর্ণফুলী নদীর ওপর নির্মিত শাহ আমানত সেতুটির উচ্চতা ১২ দশমিক ২ মিটার। যেটি নদীর দ্বিতীয় শ্রেণি অংশে পড়েছে।

Tags:

এ বিভাগের আরো কিছু সংবাদ

মন্তব্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *