রাতে ঘরের দরজা বন্ধ করে স্ত্রীর গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন দেন স্বামী।

যৌতুকের জন্য নিয়মিতই চলতো বেপরোয়া নির্যাতন।রাতে ঘরের দরজা বন্ধ করে স্ত্রীর গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন দেন স্বামী। স্ত্রী ঘর থেকে বের হতে চাইলে তার সুযোগও দেওয়া হয়নি। আগুন নিভে যাওয়ার পর ঝলসে যাওয়া শরীর থেকে টেনে-ঘষে খুলে নিলেন চামড়াও।

মেয়ের কষ্টের চিৎকার শোনাতে মেয়ের বাবার মোবাইলে ফোন করে বলেন, “তুর মেয়েকে পেট্রল দিয়ে জ্বালিয়ে দিয়েছি এসে নিয়ে যা”।ফোনের একপ্রান্তে মেয়ে মৃত্যুযন্ত্রণায় ছটফট করছেন, অপরপ্রান্তে অসহায় পিতা-মাতা অপেক্ষায় ছিলেন ভোর হওয়ার। কারণ দুই বাড়ির মাঝে খরস্রোতা কর্ণফুলী নদী।

নির্যাতনের শিকার গৃহবধু ইয়াসমিন চন্দ্রঘোনা-কদমতলী ইউনিয়নের নবগ্রাম এলাকার হারুনুর রশিদের মেয়ে। সাত বছর আগে তার বিয়ে হয় নদীর দক্ষিণ পাড়ে রাঙ্গুনিয়ার কোদালা ইউনিয়নের সন্দ্বীপপাড়ার মৃত শফিকুল ইসলামের ছেলে মো. রাফেলের সাথে। রাফেল-ইয়াসমিনের সংসারে ৫ বছর বয়সের একটি ছেলে সন্তানও রয়েছে।

শুক্রবার বিকেলে এইপশু রাফেল আটক করেছে। পুলিশ জানান তারা আইনানুগ সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নিবে। ইয়াসমিনের পরিবারকে আইনি সমর্থন দেওয়ার পাশাপাশি চিকিৎসারও তদারকি করছেন পুলিশ ।

Tags:

এ বিভাগের আরো কিছু সংবাদ

মন্তব্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *