করোনা ভ্যাকসিন উদ্ভাবনে দেশীয় প্রতিষ্ঠানের সাফল্য

বাংলাদেশি ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান গ্লোব ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড’র সহযোগী প্রতিষ্ঠান গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড। বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো কোনো প্রতিষ্ঠান এই টিকা উদ্ভাবনের কৃতিত্ব দাবি করল। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের পক্ষ থেকে এসব তথ্য জানানো হয়।

 গ্লোব বায়োটেক এর পক্ষ থেকে জানানো হয়, টিকা উদ্ভাবনে সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন প্রতিষ্ঠানের সিইও ড. কাকন নাগ এবং সিওও ড. নাজনীন সুলতানা।প্রতিষ্ঠানটি গত ৮ মার্চ এই টিকা তৈরির কাজ শুরু করে বলে জানান গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ডিপার্টমেন্টের প্রধান ড. আসিফ মাহমুদ।

ভ্যাকসিন উদ্ভাবনের অগ্রগতি সম্পর্কে জানাতে গিয়ে আবেগ প্রবণ হয়ে পরেন ড. আসিফ। তিনি বলেন, “সারাবিশ্ব যদি পারে তাহলে আমরা কেন পারবো না? আমরা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ভ্যাকসিনের আশায় বসে থাকবো তা কেন হবে? তারা কবে দেবে আর আমরা কবে নেবো সে আশায় বসে থাকলে চলবে না।”

তিনি আরও বলেন, “আমাদের নিজস্ব একটি ভ্যাকসিন দরকার, যেন আমাদের অন্যের আশায় বসে না থেকে প্রত্যেকটি মানুষ ভ্যাকসিন গ্রহণের সুযোগ পায়।”

এক পর্যায়ে করোনার ক্ষয়-ক্ষতি এবং ভয়াবহতা তুলে ধরতে গিয়ে আবেগে কেঁদে ফেলেন ড. আসিফ। আবেগ জড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, ” উই কান্ট এফোর্ড টু লুজ এনিমোর।” ভ্যাকসিন এর কথা জানাতে গিয়ে ড. আসিফের এই কান্না আবেগতাড়িত করেছে পুরো দেশবাসীকে।

উল্লেখ্য, ড. আসিফ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাইক্রোবায়োলজিতে অনার্সে প্রথম শ্রেণিতে তৃতীয় ও এমএসসিতে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম হওয়ার গৌরব অর্জন করেন।

Tags:

এ বিভাগের আরো কিছু সংবাদ

মন্তব্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *