করোনার প্রথম ওষুধ ব্যর্থ!

WORLD HEALTH ORGANISATION এর রিপোর্ট প্রকাশ্যে আসায় তীব্র চাঞ্চল্য

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় প্রতিষেধক ওষুধ আবিষ্কারের চেষ্টায় দিনরাত এক করে ফেলছেন বিজ্ঞানীরা। চীন-ব্রিটেনে শুরু হয়েছে মানবদেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগও। একই পরীক্ষা শুরু করেছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও। কিন্তু সেই ওষুধ ব্যর্থ হয়েছে বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)-এর ওয়েবসাইটে প্রকাশ হতেই বিশ্বজুড়ে তীব্র চাঞ্চল্য শুরু হয়। পরে অবশ্য ওই হু-র ওয়েবসাইট থেকে ওই তথ্য তুলে নেওয়া হয়েছে। যদিও ওষুধ প্রস্তুতকারী মার্কিন সংস্থা ‘জিলিয়াড সায়েন্সেস’-এর দাবি, ভুলবশত প্রকাশ্যে আসা এবং ডিলিট করে দেওয়া ওই রিপোর্টের ভিত্তিতে কোনও সিদ্ধান্তে আসা ঠিক নয়। বরং এই ওষুধের কিছু সুফল পাওয়া গিয়েছে।


হু-এর ওয়েবসাইটে জিলিয়াড সায়েন্সেস-এর তৈরি করা অ্যান্টিভাইরাল ড্রাগ ‘রেমডেসিভির’ সম্পর্কে একটি রিপোর্টের সংক্ষিপ্তসার প্রকাশিত হয়েছিল। সেই সূত্র ধরেই খবরটি প্রথম প্রকাশ্যে আনে ব্রিটিশ দৈনিক ‘ফিনান্সিয়াল টাইমস’। হু-এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ওই রিপোর্টের স্ক্রিন শট দিয়ে ওই প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, জিলিয়াডের সম্ভাব্য করোনাভাইরাসের ওষুধ ব্যর্থ হয়েছে।
ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী, জিলিয়াডের তৈরি ওষুধ ‘রেমডেসিভির’ চীনের ২৩৭ জন রোগীর উপর প্রয়োগ করা হয়েছিল। তার মধ্যে ১৫৮ জনকে সরাসরি ওষুধ দেওয়া হয়েছিল এবং ৭৯ জনকে একটি নিয়ন্ত্রিত দলে রেখে প্রয়োগ করা হয়েছিল। অর্থাৎ এই ৭৯ জনকে দু’তিনটি দলে ভাগ করে একটি দলকে রেমডেসিভির এবং অন্য দলগুলিকে প্রচিলত ওষুধ দিয়ে বা কোনও ওষুধ না দিয়ে পার্থক্য বোঝার চেষ্টা হয়েছিল। এক মাস পর দেখা যায়, নতুন ওষুধ দেওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে মৃত্যুর হার বেশি। এ ছাড়া ১৮ জন রোগীর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেওয়ায় তাদের ওষুধ প্রয়োগ করা বন্ধ করে দেওয়া হয়। সেই কারণেই এই টিকা ব্যর্থ বলে ওই প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে। তবে হু-এর পক্ষ থেকে ফিনান্সিয়াল টাইমসকে জানানো হয়েছে, ভুল করে ওই খসড়া রিপোর্ট প্রকাশ্যে চলে এসেছিল। রিপোর্টটি বিস্তারিত রিভিউ করা হয়নি।


রেমডেসিভির ব্যর্থ হয়েছে এই দাবি মানতে নারাজ প্রস্তুতকারী সংস্থা জিলিয়াড সায়েন্সেসও। সংবাদ সংস্থা এএফপি-কে সংস্থার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘আমরা মনে করি ওই খসড়া রিপোর্টে ওষুধ প্রয়োগ থেকে উঠে আসা তথ্যের যথার্থ বিশ্লেষণ করা হয়নি। ওষুধ বন্ধ করা হয়েছিল কারণ, প্রয়োজনীয় সংখ্যক নমুনা (এ ক্ষেত্রে মানুষ) পাওয়া যায়নি। তাই এই ওষুধ প্রয়োগ থেকে পাওয়া তথ্য অসম্পূর্ণ এবং পরিসংখ্যানগত ভাবে অর্থহীন।’ সংস্থার পক্ষ থেকে আরও দাবি করা হয়েছে, রেমডেসিভির সম্পর্কে ওই তথ্যই শেষ কথা নয়। আরও বড় আকারে ওষুধের প্রয়োগ চলছে এবং শেষ পর্যায়ে রয়েছে।

Tags:

এ বিভাগের আরো কিছু সংবাদ

মন্তব্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *