অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ প্রেস ও মিডিয়া ক্লাবের ইফতার ও দোয়া অনুষ্ঠিত

গত রবিবার (২ মে) সন্ধ্যায় সিডনির রকডেলে এক রেস্টুরেন্টে ভাবগম্ভীর ও সোহার্দপূর্ণ পরিবেশে অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ প্রেস ও মিডিয়া ক্লাবের ইফতার ও দোআ অনুষ্ঠিত হয়েছে। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কনসাল জেনারেল খন্দকার মাসুদুল আলম।

এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন কাউন্সিলর নাজমুল হুদা সহ কমুনিটির অন্যান্য বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ববর্গ, সেই সাথে বিভিন্ন জনপ্রিয় সংবাদ মাধ্যমের সম্মানিত সম্পাদক ও সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

দোআ মাহফিলে ইফতার এর পূর্বে কোরআন তেলোয়াত দোআ ও মোনাজাত পরিচালনা করেন প্রেস ও মিডিয়া ক্লাবের কোষাধাক্ষ জনাব আবুল কালাম আজাদ। মোনাজাতে বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়াতে বসবাসরত সকল বাংলাদেশির সর্বাঙ্গীণ মঙ্গলের জন্য দোয়া করা হয়।

ইফতার পরবর্তী আলোচনা সভায় সহ-সভাপতি কাজী সুলতানা শিমি’র প্রাণবন্ত সঞ্চলনায় স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন সংগঠনের সহ-সভাপতি ডঃ শাখাওয়াত নয়ন ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল ইউসুফ টুটুল। ডঃ নয়ন বলেন, আমরা এমন একটি দিনে এক হয়েছি যখন বাংলাদেশ পুড়ছে সাম্প্রদায়িক শক্তির হাতে, সময় হয়েছে প্রতিবাদ করার। জনাব ইকবাল টুটুল সংগঠনের গত কয়েক বছরের ধারাবাহিক সাফল্যের কথা তুলে ধরে বলেন, আমাদের এই গতিশীলতা ধরে রাখতে হবে এবং সাংবাদিক ও সম্মাদকদের স্বার্থ রক্ষা করবে এটাই প্রত্যাশা সকলের।

অনুষ্ঠানে প্রধান অথিতি কনসাল জেনারেল জনাব খন্দকার মাসুদুল আলমকে ফুলের তোড়া দিয়ে বরণ করে নেন সংগঠনের সভাপতি জনাব রহমত উল্লাহ। পরবর্তীতে আন্তজার্তিক ভাষা দিবস উপলক্ষে লাকেম্বাতে স্মৃতি সৌধ তৈরিতে অনবদ্য অবদান রাখায় সংগঠনের সদস্য নোমান আল শামীম ও সদস্য কাউন্সিলর নাজমুল হুদা কে ফুলের তোড়া দিয়ে সম্মানিত করেন কনসাল জেনারেল জনাব খন্দকার মাসুদুল আলম।
এসময় সভাপতি জনাব রহমতুল্লাহ জয়যাত্রা টিভির পক্ষ্য থেকে প্রভাতফেরী পত্রিকার সম্পাদক শ্রাবন্তী কাজী আশরাফীর সম্মানতা তু্লে দেন জনাব সুলাইমান দেওয়ানের হাতে।

অনুষ্ঠানে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য প্রদান করেন কনসাল জেনারেল জনাব খন্দকার মাসুদুল আলম, তিনি বলেন, বিদেশে আপনাদের অনবদ্য কাজেই দেশ জানতে পারে আমাদের এই ভুবনের কথা, আপনারা আপনাদের ভাল কাজ কম্যুনিটির জন্য উৎসর্গ করুন। সংগঠনের উপদেষ্টা জনাব আবু রেজা আরেফিন বলেন, সিডনির একটি বিশেষ মুহুর্তে আমাদের সাংবাদিক ও সংবাদ মাধ্যমের জন্য তৈরি হয়েছিলো এই সংগঠন, যা আমাদের জন্য গর্বের। ABBC অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি জাহাঙ্গীর আলম তার বক্তব্যে বলেন, বিভেদ নয় ঐক্যই আমাদের কাম্য।

কাউন্সিলর নাজমুল হুদা বলেন, আমাদের সৌধ কোনো ব্যক্তির নয়, জনগনের। দিন শেষে এটাই আমাদের প্রাপ্তি। সংগঠনের সিনিয়র সদস্য নোমান আল শামীম ফুলেল শুভেচ্ছার জন্য সংগঠনকে ধন্যবাদ জানান এবং বলেন, আমাদের কাজটাই থেকে যাবে, আমাদের কথা কেউই মনে রাখবে না। কমুনিটির প্রবীণ ব্যক্তিত্ব জনাব গামা কাদির তার জ্বালাময়ী বক্তব্যে স্মৃতি সৌধের বিরুদ্ধে দাড়ানোর জন্য সংশ্লিষ্টদের ভর্তসনা করে বলেন, যাদের কোনো অবদান নেই তারাই এসব করে বেড়ায়, অথচ এই পরিশ্রম অন্য যায়গায় করলে এরকম আরো সৌধ গড়ে উঠতে পারতো। অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ প্রেস ও মিডিয়া কাউন্সিলের সেক্রেটারি আব্দুল মতিন তাকে এই মহিমান্বিত ইফতারে দাওয়াতের জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, সংগঠনের মধ্যকার সম্পর্কটা খুব দরকার। সাবেক বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অফ নিউ সাউথ ওয়েলস এর সভাপতি আকম শফিক বলেন, এই ধরনের ইফতার মাহফিলে আমাদের মধ্যে বোঝাপড়া গড়ে উঠে, যা আমাদের জন্য সুখকর।

পরিশেষে সকলকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে বক্তব্য প্রদান করেন অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ প্রেস ও মিডিয়া ক্লাবের সভাপতি জনাব রহমত উল্লাহ। অনুষ্ঠান শেষে সম্মানিত অতিথিবৃন্দের সম্মানে এক নৈশভোজের আয়োজন করা হয়।

Tags:

এ বিভাগের আরো কিছু সংবাদ

মন্তব্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *