অস্ট্রেলিয়ার সাথে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের ঐতিহাসিক নিরাপত্তা চুক্তি সাক্ষরিত, চীনের সমালোচনা

চীনকে মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে ঐতিহাসিক নিরাপত্তা চুক্তি সম্পাদিত হয়েছে। অপর দিকে এই চুক্তির তীব্র সমালোচনা করেছে বেইজিং। তিন দেশের বিশেষ এই নিরাপত্তা চুক্তিকে ‘চরম দায়িত্বজ্ঞানহীন’ এবং ‘সংকীর্ণমনা’ বলে উল্লেখ করেছে দেশটি। আর উভয়পক্ষের এই পাল্টাপাল্টি অবস্থান ও বক্তব্যে কার্যত দক্ষিণ চীন সাগরে আরও উত্তেজনা তৈরী হবে বলে আশংকা করা হচ্ছে। ‌

চুক্তি অনুযায়ী, অস্ট্রেলিয়া প্রথমবারের মতো পারমাণবিক সাবমেরিন তৈরির প্রযুক্তি পাবে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের কাছ থেকে। এছাড়া দেশ তিনটি নিজেদের অন্যান্য উন্নত প্রতিরক্ষা প্রযুক্তি পরস্পরের সঙ্গে বিনিময় করতে পারবে। এর সব কিছুরই লক্ষ্য চীনকে মোকাবিলা করা।

দক্ষিণ চীন সাগরে বেইজিংয়ের প্রভাব কমিয়ে আনতে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়া এই পদক্ষেপ নিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে দক্ষিণ চীন সাগর ও এর পার্শ্ববর্তী এলাকা ভূরাজনৈতিকভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং সেখানে উত্তেজনাও অনেক বেশি বিদ্যমান থাকে।

যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়ার নিরাপত্তা চুক্তির বিষয়ে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান বলছেন, এই চুক্তির মাধ্যমে আঞ্চলিক শান্তি ধ্বংসের বড় ধরনের ঝুঁকি তৈরি করেছে ওই দেশগুলো। একইসঙ্গে এই ধরনের কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে অস্ত্র প্রতিযোগিতাও বাড়িয়ে দেওয় হচ্ছে।

Tags:

এ বিভাগের আরো কিছু সংবাদ

মন্তব্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *