অভ্যুত্থান বিরোধী অবস্থান নেওয়ায় জাতিসংঘে নিযুক্ত মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করলো জান্তা সরকার।

জাতিসংঘে নিযুক্ত মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত কিয়াও মো তুনকে গতকাল শনিবার বহিষ্কার করেছে দেশটির জান্তা সরকার। নিজ দেশে ক্ষমতাসীনদের পক্ষ ছেড়ে তাদের বিরুদ্ধে ‘যথাসম্ভব সর্বোচ্চ কঠোর পদক্ষেপ’ নিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানানোর পর বহিষ্কার করা হলো তাঁকে।

মিয়ানমারে স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চির সরকারকে হটিয়ে ১ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখল করে সেনাবাহিনী। গ্রেপ্তার করা হয় সু চিসহ তাঁর দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) শীর্ষস্থানীয় নেতাদের। এই সামরিক অভ্যুত্থানকে কেন্দ্র করে মিয়ানমার বিষয়ে গত শুক্রবার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে আবেগঘন বক্তব্য দেন রাষ্ট্রদূত মো তুন।

সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে কোনো দেশের রাষ্ট্রদূতের নিজ দেশের শাসকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে বক্তব্য দেওয়ার ঘটনা বিরল। শুক্রবার মিয়ানমারের প্রতিনিধি সেই কাজই করেন।

আমরা গণতান্ত্রিক সরকারের জন্য লড়াই অব্যাহত রাখব। যে সরকার জনগণের সরকার, জনগণের দ্বারা নির্বাচিত সরকার ও জনগণের স্বার্থে পরিচালিত সরকার।

অধিবেশনে রাষ্ট্রদূত জাতিসংঘের সদস্যরাষ্ট্রগুলোর প্রতি তাঁর দেশে সামরিক অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে প্রকাশ্য বিবৃতি জারি করে কঠোর ভাষায় নিন্দা জানানোর আহ্বান জানান। রাষ্ট্রগুলোকে তাঁর দেশের সেনাশাসকদের স্বীকৃতি বা তাঁদের সহযোগিতা না করতেও অনুরোধ জানান তিনি। একই সঙ্গে তিনি দাবি করেন, গত বছর মিয়ানমারে অনুষ্ঠিত গণতান্ত্রিক নির্বাচনের ফলাফলের প্রতি জান্তাশাসকেরা যাতে শ্রদ্ধা দেখান, সে লক্ষ্যে চাপ সৃষ্টি করা উচিত।

বর্মিজ ভাষায় বক্তব্য শেষে তিন আঙুল উঁচিয়ে স্যালুট দেন মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত। মিয়ানমারে সেনাশাসনবিরোধী চলমান আন্দোলনে জান্তা সরকারকে বিদায় করার প্রতীকী চিহ্ন হিসেবে এভাবে তিন আঙুল উঁচিয়ে বিক্ষোভকারীদের স্যালুট প্রদর্শন করতে দেখা গেছে।

সুত্র : এএফপি

Tags:

এ বিভাগের আরো কিছু সংবাদ

মন্তব্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *